Building Healthy Bangladesh

সাদা নাকি লাল চাল? কোনটা বেশি উপকারি?

সাদা নাকি লাল চাল? কোনটা বেশি উপকারি?
November 1, 2019 Parmeeda Admin
In Healthy Living

চাল একটি শস্যদানা যা আমরা ধান থেকে পেয়ে থাকি। আমাদের দেশে ফলনশীল শস্যের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ফলানো হয় ধান। আমাদের প্রতিদিন খাবারের একটি অতি প্রয়োজনীয় অংশ হচ্ছে চাল থেকে রান্না করা ভাত । ”ভাত ছাড়া বাঙালি” একটু ভাবুনতো এ কথাটা কল্পনা করা যায় কিনা? আর ভাত বলতে আমরা সিদ্ধ চালের ভাতকেই বুঝে থাকি।

একের অধিক প্রচীন দলিল ঘেঁটে চিকিৎসা বিজ্ঞান খুঁজে পেয়েছিলেন যে, এই আধুনিক সভ্যতার জন্ম নেওয়ার শতশত বছর আগে গ্রাম বাংলার মানুষেরা ঢেঁকি ছাঁটা চালই খেত, যাকে আধুনিক সমাজ ব্রাউন রাইস বলে চেনে। আদিকাল থেকেই বাংলাদেশের ঐতিহ্যের সাথে মিশে আছে ভাত। আর সেকাল থেকেই লোকমুখে একটি প্রবাদ বাক্য চলে আসছে “আমরা মাছে ভাতে বাঙালি”। তাই “ভাত ও বাঙালি” এই শব্দ দুটি একে অপরের সাথে ওতোপ্রোতভাবে মিশে আছে। সময় এগিয়ে যাওয়ার সাথে সাথে বদলে যাচ্ছে মানুষের জীবনযাত্রা, সেই সঙ্গে খাদ্যাভ্যাসেও এসেছে বদল। লাল চালের জায়গা নিয়েছে পলিশ করা সাদা চাল। তাই তো বেড়েছে রোগ, কমেছে গড় আয়ু। এমন পরিস্থিতে সেই আদিকালে ফিরে যাওয়া ছাড়া আর কোনও উপায় আছে বলে তো মনে হয় না!

সাদা ভাতের থেকে ব্রাউন রাইস বা লাল চাল অনেক বেশি পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ। শুধু কি তাই, একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে ব্রাউন রাইস এর আঁশে আছে ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন ডি, ম্যাঙ্গানিজ, জিঙ্ক ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা হার্টের কর্মক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি হজম ক্ষমতার উন্নতিতে এবং ব্রেন পাওয়ার বাড়াতেও বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। চালের আঁশে আছে ভিটামিন ডি, ম্যাঙ্গানিজ, জিঙ্ক, ও unsoulab fibre। পেট পরিষ্কার করে এবং পেটের বন্ধু অণুজীব এর খাদ্য হচ্ছে আঁশ প্রাচীনকালে সিংহভাগ মানুষই ছিল সুস্বাস্থের অধিকারি, কারণ ব্রাউন রাইস বা লাল চাল পলিশ করা হত না। ফলে এই চাল থেকে পুষ্টিগুণ হারিয়ে যাওয়ারও কোন ভয় ছিল না। তাই তো এমন চাল খাওয়ার কারণে সে সময়কার মানুষদের শরীরে কোনও রোগ বালাই বাসা বাঁধতে পারতো না। কিন্তু বর্তমানে আমরা প্রায় সবাই সাদা চালের ভাত খেয়ে থাকি, আমরা অনেকেই জানিনা লাল চালের ভেতর কি কি উপকারিতা লুকিয়ে আছে। লাল চালের উপকারিতা নিয়েই আজ আমার এই লেখা।

আপনাদের সত্যিই যদি লাল চালের উপকারিতা সম্পর্কে জানার আগ্রহ থাকে তবে অবশ্যই আমার এই লেখাটি আপনাদের উপকার করবে। সাদা শান্তির প্রতীক হলেও, স্বাস্থ্য সচেতনতার কথা চিন্তা করলে খাবারের তালিকায় যোগ করতে হবে লাল আটা বা লাল চাল। কিন্তু অনেকের খাবার তালিকায় লাল চাল নয় বরং রয়েছে সাদা চালের ভাত। রঙিন খাবার আসলেইকি সাদার চাইতে বেশি উপকারী?

“সাদা নাকি লাল চাল? কোনটা বেশি উপকারি?”

সাধারণত আমরা বলি লাল চালের ভাতই ভালো। আবার কেউ কেউ সাদা চাল পছন্দ করেন। তাহলে কোনটা ভালো? আসুন, এ দুই ধরনের চালের ভালো-মন্দ বিবেচনা করে দেখি।

স্বাস্থ্যকর খাবারের মধ্যে লাল চাল অন্যতম। কারণ লাল চালে রয়েছে অনেক পুষ্টিগুণ। সুস্বাস্থ্যের জন্য এই চালের অবদান অনস্বীকার্য।

  • খোসা ফেলে দেয়ার পরও লাল চালের গায়ে একটি আবরণ থাকে। যা এর পুষ্টি উপাদানগুলোকে অক্ষত রাখে। লাল চালে সাধারণ সাদা চালের চেয়ে অনেক বেশি পরিমাণ খাদ্য আঁশ, খনিজ পুষ্টি এবং ভিটামিন রয়েছে।
  • এই চাল বাজারজাতকরণের সময় তীব্র প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং মসৃণকরণের মধ্যে দিয়ে যেতে হয় না। ফলে লাল চাল বেশি স্বাস্থ্যকর, বেশি পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ এবং বেশি সুস্বাদু এ কথা অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই। অন্যদিকে লাল চাল পরিশোধন করে সাদা চাল তৈরির প্রক্রিয়ায় চালের প্রয়োজনীয় উপাদান অনেকাংশে নষ্ট হয়ে যায়। আঁশও কমে যায়। এসব বিবেচনায় লাল চাল নিঃসন্দেহে ভালো।

 

এই লাল চাল খাওয়ার ফলে যে স্বস্থ্য ঝুঁকি থেকে আপনি বেঁচে যেতে পারেন-

  • ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকবে
  • শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ঘাটতি দূর করতে সাহায্য করবে
  • আপনার শরীরের বাড়তি ওজন কমাতে সাহায্য করবে
  • অ্যালঝাইমার রোগ আপনার কাছ থেকে দূরে থাকবে
  • হজম ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে
  • হার্টের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সহায়তা করবে
  • ক্যান্সার রোগকে দূরে ঠেলে দিবে।

 

”আসুন আমরা লাল চাল খাওয়ার অভ্যাস গড়ি সুস্থ থাকি”

 

Written by: Sayef Zaman, parmeeda.com

Comments (0)

Leave a reply

PARMEEDA সম্পর্কে অভিমত দিন!