মধু – মা ও শিশুর জন্য কি উপকারী ?
মধু – মা ও শিশুর জন্য কি উপকারী ?

খাঁটি মধু সুস্বাস্থ্যের জন্য অনেকেই নিশ্চিন্তে পান করে থাকেন।  মধুর রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতার কারণে এবং লো গ্লাইসেমিক ইনডেক্স এর জন্য চিনির  প্রাকৃতিক বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করেন। 

কিন্তু যখন মধু গর্ভবতী মা ও নবজাতক শিশুর প্রশ্ন আসে তখন কি খাঁটি মধু মা ও শিশুর জন্য খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করা নিরাপদ কিনা এই ব্যাপারে অনেকেই চিন্তিত থাকেন।  

প্রথমেই জেনে নেই সাধারণত খাঁটি মধুতে কি ধরণের পুষ্টি গুন থাকে 

প্রতি ১০০গ্রাম মধুতে –

১.ক্যালোরি – ৩০৪

২.টোটাল ফ্যাট – ০%

৩.সোডিয়াম – ৪মিলিগ্রাম  – ০%

৪.মোট শর্করার পরিমান – ৭৬গ্রাম – ৮২ গ্রাম 

    – ফ্রুকটোজ – ৪০.৯৪

    – গ্লুকোজ – ৩৫.৭৫ 

এছাড়াও থাকে 

রিবোফ্লাবিন- ভিটামিন বি ২, নিয়াসিন- ভিটামিন বি ৩, ভিটামিন বি ৫, ভিটামিন বি ৯, 

গর্ভকালীন সময়ে খাঁটি মধু গ্রহণের উপকারিতা :

গর্ভকালীন সময়ে যেকোন ধরণের খাদ্য ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী  গ্রহণ করা উচিত। সাধারণত পূর্ণবয়স্ক নারী যখন গৰ্ভৰতী হন তিনি মধুর সাথে থাকা ব্যাকটেরিয়া হজম করে ফেলতে পারেন।  কিন্তু “Clostridium” ব্যাকটেরিয়া  “botulism” রোগ সৃষ্টি করতে পারে যা দ্বারা পূর্ণবয়স্ক নারী “সাধারণত” আক্রান্ত হন না।  কারণ শরীরের ইমিউন সিস্টেম এই ব্যাকটেরিয়া কে মেরে ফেলে আর এই ব্যাকটেরিয়ার স্পোর প্লাসেন্টা দিয়ে গর্ভস্থ শিশু পর্যন্ত পৌঁছতে পারেনা। 

এছাড়া মধুর উপকারিতা অনেক।

১.ইমিউন সিস্টেমকে শক্তিশালী করে –

মধুর এন্টিঅক্সিডেন্ট ও এন্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য ইমিউন সিস্টেমকে শক্তিশালী করে রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বাড়ায়।   

২.গলাভাঙা ও সর্দি কাশি প্রতিরোধে সাহায্য করে – 

আদা , লেবু ও উষ্ণ পানির সাথে মধু পান করলে গলাভাঙা ও সর্দিকাশি প্রতিরোধে সহায়তা করে। 

৩.এলার্জি প্রতিরোধে সহায়তা করে –

মধুতে থাকা স্বল্প পরিমানের পোলেন নিয়মিত গ্রহণের ফলে পোলেন এলার্জি দূর হতে পারে। 

৪. অনিদ্রা দূর করতে সহায়তা করে – 

উষ্ণ গরম দুধের সাথে মধু (অল্প পরিমানে ) মিশিয়ে খেলে ভালো ঘুম হয়।  

৫. মাথার স্ক্যাল্প ঠিক রাখে – 

হালকা গরম পানির সাথে মধু মিশিয়ে মাথায় দিলে স্ক্যাল্প সুস্থ থাকে খুশকি দূর হয়।  

গর্ভবতী নারীর কতটুকু মধু গ্রহণ করা উচিত ?

গর্ভবতী নারীর যেকোন খাদ্য গ্রহণে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ নেয়া উচিত।  মধু অল্প পরিমানে গ্রহণ করা উচিত ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে।  

 কিন্তু যেসব গর্ভবতী নারীর inflammatory bowel disease (IBD) এধরণের সমস্যা আছে তাদের গর্ভাবস্থায় মধু পরিহার করে চলাই ভাল ।

নবজাতক শিশুদের কি মধু খাওয়ানো উচিত ?

উত্তর হল ” না “ , ১ বছরের নিচের শিশুকে মধু খাওয়ানো উচিত না  কারণ মধুতে “Clostridium bacteria” থাকতে পারে যা শিশুদের  infant botulism ইনফ্যান্ট বটুলিজম ” রোগ সৃষ্টি করতে পারে।  ১ বছরের চেয়ে ছোট বাচ্চাদের মধু দেয়া উচিত না।  সাধারণত বাচ্চাদের বয়স ১ বছরের বেশি হলে বা ২ বছর থেকে মধু খাওয়ানো যেতে পারে কিন্তু খুব অল্প পরিমানে কারণ তখন বাচ্চাদের শরীরে ইমিউন সিস্টেম ডেভেলপ করে এবং পাচনতন্ত্র পরিপক্ক হয় এবং এই ব্যাকটেরিয়া  তেমন ক্ষতি করতে পারেনা। 

বড় বাচ্চাদের মধু খাওয়ালে তাদের জন্য মধু অত্যন্ত উপকারী। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My Cart (0 items)

No products in the cart.