বহুবিদ উপায়ে সজনে পাতা গুড়ার ব্যবহার এবং এর উপকারিতা ও অপকারিতা

সজনে পাতা শুকিয়েও সংরক্ষন করা যায়, বহির্বিশ্বে সজনে পাতা শুকিয়ে সংরক্ষন করে থাকে । সজনের রয়েছে নানা উপকারী দিকঃ-

১.চোখের সমস্যাঃ- সজনে পাতা চোখের সমস্যা সমাধানে কাজ করে থাকে , এটিতে রয়েছে Eye side improve ink properties যা চোখের রেটিনা  ভালো রাখতে সাহায্য করে।

২.হৃদ রোগেঃ- সজনে পাতা কোলেস্টরেল মাত্রা নিয়ন্ত্রন করে হৃদরোগে আক্রান্ত  সম্ভাবনা কমিয়ে থাকে। নিয়মিত সজনে পাতা খেলে ব্লাডে অক্সিজেন লেবেল বেড়ে যায় এবং হার্ট ভালো রাখে।

৩.হাঁপানিঃ- নিয়মিত সজনে পাতা খেলে হাঁপানি  রোগ থেকে মুক্তি মিলে  এবং ফুসফুসের কার্যকারিতা বৃদ্বিতে ভালে কাজ করে থাকে।

৪.ব্লাড প্রেশারঃ– সজনে পাতা খেলে মানুষের হাই ব্লাড প্রেশার নিয়ন্ত্রন করে থাকে। যাদের হাই ব্লাড প্রেশার রয়েছে তারা প্রেশার নিয়ন্ত্রনে সজনে পাতা খেতে পারেন।

৫.ডাইবেটিসঃ- ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে বিশেষ ভূমিকা রেখে থাকে এই সজনে পাতা ।  ব্লাডে সুগারের পরিমান বেড়ে গেলে তা নিয়ন্ত্রনে ভালো  কাজ করে থাকে। সজনে পাতা শুকিয়ে নিয়মিত খেলে ব্লাডে সুগারের পরিমান কমে যায় এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রন করে থাকে।

৬.কিডনিঃ- কিডনি সমস্য সমাধানে সজনে পাতা ও সজনে ডাটা ভালো কাজ করে থাকে।

এছাড়াও  সজনের রয়েছে আরও অনেক গুনাগুন এটি লিভার ভালো রাখে, দাঁতের মাড়িকে মজবুত রাখতে সহায়তা করে ।

সজনের উপকারীতার সাথে সাথে কিছু অপকারিতাও রয়েছে যেমন এ গাছের পাতা, ফুল, ডাটায় উপকারীতা থাকলেও এই গাছের মূল বা শিকড় খাওয়া উচিত নয় । এতে বড়  ধরনের সমস্য হতে পারে, প্যারালাইসিস হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়।  গর্ববতী মায়েদের জন্য এই সবজি এরিয়ে চলাটাই ভালে কেননা তাদের পার্শ্ব  প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পরে। যে মায়েরা বাচ্চাদের দুধ খাওয়ায় তাহারা এ সবজিটি এড়িয়ে চলবেন কেননা এতে বাচ্চার ক্ষতি হতে পারে

ত্বক এবং চুলের যত্নে সজনে পাতা গুড়ার গুরুত্ব

ত্বকের যত্নে মরিঙ্গা বা সজনে পাতার প্যাক

এতক্ষনে আমরা জেনে গিয়েছি সজনে পাতার নানা অজানা গুনাগুণ সম্পর্কে। তাহলে এবার জেনে নেয়া যাক কিভাবে ব্যবহার করলে এই সজনে পাতা আমাদের ত্বকে ভালোভাবে কাজ করবে। বিশেষ করে যাদের স্কিন রুক্ষ-শুষ্ক, ব্যস্ত জীবনে সহজ সমাধান হতে পারে এই ফেইস মাস্ক বা প্যাক!

প্রথমেই ১ টেবিল চামচ মরিঙ্গা বা সজনে পাতার পাউডার নিয়ে নিন। এতে ১ টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে নিন। সাথে ১ টেবিল চামচ রোজ ওয়াটার দিয়ে ভালোভাবে মিক্স করে নিন। চাইলে সামান্য লেবুর রস দিয়ে নিতে পারে। কখনই লেবুর রস সরাসরি ত্বকে অ্যাপ্লাই করবেন না। কন্সিসটেন্সি বুঝে প্রয়োজনে একটু পানি এড করে নিন। এবার মুখে লাগিয়ে রাখুন, ১০ থেকে ১৫ মিনিট হয়ে গেলে যখন প্যাকটি শুকিয়ে আসবে তখন হালকা কুসুম কুসুম গরম পানি দিয়ে প্যাকটি উঠিয়ে নিন। সবশেষে একটি ভালো ময়েশ্চারাইজার মুখে লাগিয়ে নিন। এতে মুখের শুষ্কভাব দূর হবে। এই প্যাকটি সপ্তাহে ২ থেকে ৩ বার ব্যবহার করতে চেষ্টা করুন। এতে বলিরেখা, ছোপ ছোপ দাগ এবং মলিনতা অনেকাংশেই কমে আসবে।

চুলের যত্নে মরিঙ্গা বা সজনে পাতার প্যাক

চুলে প্রাণ ফিরিয়ে আনতে প্রাকৃতিক উপায়ে তৈরি হেয়ারপ্যাক গুলোর কার্যকারিতা অনেক। মরিঙ্গা বা সজনে পাতার পাউডার দিয়ে দারুন একটি হেয়ার মাস্ক রেসিপি থাকছে আপনাদের জন্য। চলুন জেনে নেই কি কি লাগবে প্যাকটি বানাতে।

২ টেবিল চামচ মরিঙ্গা বা সজনে পাতার পাউডারের সাথে ১ টেবিল চামচ মেহেদীর পাউডার নিয়ে নিন। এবার এতে টকদই মিশিয়ে নিন, চাইলে এর সাথে কয়েক ড্রপ ক্যাস্টর অয়েল দিয়ে নিতে পারেন। এবার সমস্ত উপকরণ একসাথে ভালোভাবে মিশিয়ে নিয়ে চুলের গোঁড়া থেকে নিচ পর্যন্ত ভালোভাবে লাগিয়ে নিন। ৪০ থেকে ৪৫ মিনিট রেখে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। যাদের মাথায় খুশকির সমস্যা বা ইচিনেস রয়েছে, তাদের জন্যে এ প্যাকটি হতে পারে দারুণ একটি সমাধান। এছাড়াও এই প্যাকে থাকা মেহেদী চুলকে উজ্জ্বল করবে। ক্যাস্টর অয়েল চুলের গ্রোথ বাড়াতে এবং নতুন চুল গজাতে সাহায্য করবে। ভালো ফলাফলের জন্যে এই প্যাকটি সপ্তাহে ২ থেকে ৩ বার ব্যবহার করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

My Cart (0 items)

No products in the cart.